ঘোষণা

করোনার বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন সহায়তায় ঐক্যবদ্ধ আবে-ট্রাম্প

| শুক্রবার, ০৮ মে ২০২০ | পড়া হয়েছে 100 বার

করোনার বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন সহায়তায় ঐক্যবদ্ধ আবে-ট্রাম্প

ওমর শাহ : জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজ নিজ দেশের করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি, চিকিৎসার ওষুধ ও ভ্যাকসিনের উন্নয়নে সহযোগিতা করার বিষয়ে একমত হয়েছেন। জাপানের রাজধানী টোকিওতে ৮ এপ্রিল (শুক্রবার) এক সংবাদ সম্মেলন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জাপানের মন্ত্রী পরিষদ সচিব ইয়োশিহিদ সুগা।

জাপানের অনুরোধে অনুষ্ঠিত টেলিফোন আলোচনায় আবে ও ট্রাম্প করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই অর্থনৈতিক কার্যক্রম কিভাবে পুনরায় চালু করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন সেই বিষয়েও কথা বলেছেন বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানান সুগা।

সুগা জানান, দুই দেশের নেতার মধ্যে অত্যন্ত অর্থবহ ফোনালাপ হয়েছে। করোনা ভাইরাস নিয়ে বিশ্ব ঐক্য যখন প্রয়োজন ঠিক সেই সময়ই জাপান ও মার্কিন দুই নেতা ফোনালাপের মাধ্যমে সহায়তা ও সমন্বয় নিশ্চিত করতে একমত হয়েছেন।

কিয়োডা নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসের ওষুধ ও ভ্যাকসিন নিয়ে যে দেশগুলো কাজ করছে তার মধ্যে জাপান সবার উপরেরে দিকে রয়েছে। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো জাপান করোনা ভাইরাস রোগীদের চিকিৎসার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গিলিয়েড সায়েন্সেস ইনকরপোরেশনের অ্যান্টি-ভাইরাল ওষুধ রেমডেসিভার ব্যবহারের জন্য ৭ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) অনুমোদন দিয়েছে।

জাপান সরকারের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানান, আবে ও ট্রাম্প রেমডেসিভার ও আরেকটি সম্ভাব্য কভিড -১৯ এর চিকিৎসার ওষুধ সম্পর্কে কথা বলেছেন। তবে ওষুধটি জাপান তৈরি করবে না আমেরিকা তৈরি করবে সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি ওই কর্মকর্তা।

করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত গুরুতর লক্ষণযুক্ত রোগীদের চিকিৎসায় সহায়তা করতে পারে রেমডেসিভার। তবে সরবরাহের ঘাটতি থাকায় ইতোমধ্যে রেমডেসিভার নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হয়েছে। জাপানি ওষুধ কোম্পানির তৈরি অ্যান্টি ফ্লু ড্রাগ অ্যাভিগান কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য সরবরাহ করতে চলতি মাসের শেষে জাপান অনুমোদন পাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি নিয়ে মার্চের শেষের দিকে টেলিফোনে কথোপকথন করেছিলেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ও আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। করোনা ভাইরাসের কারণে টোকিও অলিম্পিক ও প্যারা অলিম্পিকস-২০২১ স্থগিতের বিষয়ে আবে টেলিফোনে ট্রাম্পকে অবহিত করেছিলেন।

বিশ্বের বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ আমেরিকা আবার খোলার চেষ্টা করছেন ট্রাম্প। জাপানে করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা আমেরিকার তুলনায় অনেক কম। জাপানের প্রধানমন্ত্রী আবে করোনার বিস্তার ঠেকাতে ও হাসপাতালের উপর চাপ কমাতে মে মাসের শেষ পর্যন্ত দেশব্যাপী জরুরী অবস্থা বাড়িয়েছেন।

টেলিফোনে কথোপকথনে আবে ও ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। জাপানের নাগরিকদের পারমাণবিক অস্ত্র, ক্ষেপণাস্ত্র ও অতীতে অপহরণ ইস্যুর সমস্যা সমাধানে একত্রে কাজ করতে তারা সম্পূর্ণরূপে একমত হয়েছেন জানিয়েছেন জাপানি কর্মকর্তা।

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সাথে এখনও জাপানের কোনও শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়নি। জাপানিদের অপহরণের বিষয়টি সমাধানের প্রতিশ্রুতি তারা এখনও ছাড়েনি, যা ১৯৭০ ও ১৯৮০ এর দশকে হয়েছিল।

অনেক দিন জনসম্মুখে না আসায় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে ও সামাজিক মাধ্যমে নানান জল্পনা-কল্পনা চলছিল যে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন মারাত্মক অসুস্থ। তার ২০ দিন পর তিনি মে মাসের প্রথম দিকে প্রথম প্রকাশ্যে আসেন।

তথ্যসূত্র: কিয়োডো ও মাইনিচি জাপান

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ৬:১৯ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ০৮ মে ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত