ঘোষণা

জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে জিজ্ঞাসাবাদ 

অনলাইন ডেস্ক | মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 56 বার

জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে জিজ্ঞাসাবাদ 

জাপানের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির সমর্থকদের জন্য নৈশভোজ আয়োজনে বেআইনি ব্যয় করার যে অভিযোগ উঠেছে সে বিষয়ে জানতে দেশটির সদ্য সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবেকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে প্রসিকিউটররা। আবের ঘনিষ্ঠরা বিষয়টি ২২ ডিসেম্বর জাপানের বিভিন্ন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

নৈশভোজের অনুষ্ঠান সম্পর্কিত আয় ও ব্যয় রেকর্ড না করার অভিযোগে তার সরকারী সচিবের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রসিকিউটররা। বেশ কয়েক মাস ধরে এ বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে জাপানের রাজনৈতিক অঙ্গনে।

রাজনৈতিক তহবিলের প্রতিবেদনে মোট আয় ও ব্যয়গুলোর প্রায় ৪০ মিলিয়ন জাপানি ইয়েন (৩৮৭০০০ মার্কিন ডলার) এর হিসেব অন্তর্ভক্ত করা হয়নি বলে আবের সচিবের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠেছে।

এই অভিযোগের ফলে শিনজো আবের রাজনৈতিক ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে। একই অভিযোগ তার উত্তরসূরি ইয়োশিহিদে সুগার ভাবমূর্তিতে আঘাত করতে পারে। সুগা বর্তমানে জাপানের প্রধানমন্ত্রী।

শিনজো আবে প্রধানমন্ত্রী থাকাকলে তার অধীনে প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন ইউসিহিদে সুগা। সংবাদ সম্মেলন ও সংসদে এই কেলেঙ্কারী নিয়ে তৎকালীন নেতার পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন তিনি।

এদিকে বিরোধীদের অভিযোগের জবাব দিতে ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নীতি নির্ধারকরা বছর শেষ হওয়ার আগেই শিনজো আবেকে এই অভিযোগের সমাধানের জন্য সংসদে ডেকে পাঠানোর পরিকল্পনা করছে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিনজো আবে এ দলের প্রধান ছিলেন।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে সংসদে যে কোনো প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য প্রস্তুত রয়েছেন। গত শুক্রবার তিনি বলেন ” আমি আন্তরিকভাবে যে কোনও প্রশ্ন মোকাবিলা করবো। হোক সেটা সংসদে বা কোনো অন্য স্থানে। প্রসিকিউটররা তদন্ত শেষ করার পরে যে কোন স্থানে কথা বলতে প্রস্তুত আছি। ”

শিনজো আবের রাজনৈতিক সচিব তার দলের সমর্থকদের জন্য ২০১৩-২০২৯ সালের মধ্যে সরকারি ব্যয়ে কয়েকটি নৈশভোজের আয়োজন করেছিলেন। যার সঠিক হিসেব তিনি লিপিবদ্ধ করেননি যার জন্য জিজ্ঞাসাবাদে মুখোমুখি হতে হচ্ছে আবেকে। এছাড়া বিরোধীদের ক্ষোভের মধ্যে পড়েছেন আবে।

টোকিওর দুটি বিলাসবহুল হোটেলে ওই নৈশভোজ অনুষ্ঠানের বিলগুলো গত পাঁচ বছরে মোট ২৩ মিলিয়ন ইয়েন। যা অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে সংগৃহীত অর্থের পরিমাণের চেয়ে অনেক বেশি, যাদের মধ্যে অনেকে পশ্চিমের জাপানের ইয়ামাগুচি প্রদেশের আবের নির্বাচনী এলাকার ভোটার ছিলেন।

আবের রাজনৈতিক সচিব প্রসিকিউটরদের প্রশ্নোত্তরের সময় এ বিষয়ে আবের উদাসীনতা ছিল বলে জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক সচিব এই প্রসঙ্গে মিথ্যা ব্যাখ্যা দিয়েছেন বলে শিনজো আবের ঘনিষ্ঠরা দাবি করেছেন।

শারীরিক সমস্যার কারণে সেপ্টেম্বরে পদত্যাগ করার আগে দেশটির দীর্ঘতম কর্মক্ষম প্রধানমন্ত্রী হওয়া শিনজো আবে গত বছরের নভেম্বরে এই কেলেঙ্কারী প্রকাশিত হওয়ার পরে বারবার কোনও অন্যায় কাজ করেননি বলে দাবি করেছেন।

সূত্র: কায়দো নিউজ

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ২:৫০ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত