ঘোষণা

জাপানে করোনা প্রকোপে সাধারণ রোগীদের হাসপাতাল থেকে সরিয়ে অন্যত্র স্থানান্তর

| সোমবার, ০৪ মে ২০২০ | পড়া হয়েছে 107 বার

জাপানে করোনা প্রকোপে সাধারণ রোগীদের হাসপাতাল থেকে সরিয়ে অন্যত্র স্থানান্তর

ওমর শাহ : জাপানের হাসপাতালগুলো থেকে অ্যাম্বুলেন্স পরিবহনে রোগীদের দূরে সরিয়ে নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকেই তাদের হাসপাতাল থেকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বছরের শুরু থেকে এপ্রিল মাসে এসে করোনা রোগীর সংখ্যা পাঁচগুণ বেশি বেড়েছে বলে কিয়োডো নিউজের এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে।

সমীক্ষায় বলা হয়েছে, করোনা ভাইরাসে প্রকোপে হাসপাতালের জরুরি সেবায় প্রভাব ফেলছে। কোভিড-১৯ হাসপাতালে ভর্তি সাধারণ রোগীদের উন্নত চিকিৎসার সুবিধা থেকে বঞ্চিত করবে। করোনা ভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট অসুস্থতা ও এ জাতীয় রোগের লক্ষণগুলোর সাথে সাধারণ রোগীদের সঠিক চিকিৎসা দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।

জরুরী সেবার ক্ষেত্রে জড়িত সংস্থাগুলো বলছে, জাপানে নতুন করোনা ভাইরাসের রোগী চার গুণ বা চার চেয়ে বেশি বেড়ে গেছে। অধিকাংশেই জ্বর ও শ্বাস নিতে অসুবিধাজনিত রোগীদের গ্রহণ করতে হয়েছে। ১-২৭ এপ্রিল সময়ের মধ্যে এ ধরনের রোগীর সংখ্যা ২৭০৫ ছাড়িয়েছে গেছে যা ২০১৯ সালে ছিল মাত্র ৪৮৩ জন বলে সমীক্ষায় বলা হয়েছে।

জাপানে অ্যাম্বুলেন্স পরিবহন পরিসেবার দায়িত্বে রয়েছে ফায়ার বিভাগ। রাজধানী টোকিওর ফায়ার ডিপার্টমেন্ট ও দেশটির ৪৭ টি ফায়ার সার্ভিস ইউনিটের মধ্যে ৩১ টি ফায়ার ইউনিট হাসপাতাল থেকে রোগী সরানোর কাজ করেছে।

এদিকে জাপানের স্বরাষ্ট্র ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয় দ্বারা পরিচালিত আরেকটি অনুরূপ সমীক্ষায়ও একই চিত্র দেখা গেছে। রোগীদের মধ্যে জ্বর ও শ্বাসকষ্টজনিত বিভিন্ন ধরণের যে লক্ষণ এপ্রিলের শেষের দিকে দেখা যাচ্ছে এই সংখ্যাটি এক বছর আগে থেকে প্রায় দ্বিগুণ।

কিয়োডো নিউজের সমীক্ষার তথ্য অনুসারে, ফায়ার সার্ভিস দফতরের ৩২টির মধ্যে ১৯টি রাজধানী টোকিওতে রোগী সরানোর কাজে নিয়োজিত করা হয়। সংস্থাটি বলছে, টোকিওতে এই ধরনের লক্ষণের রোগীর সংখ্যা ২০৭ থেকে ১৭৩৩ বৃদ্ধি পেয়েছে যা প্রায় ৮ গুণ বেশি।

রোগীদের সরানোর কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে ২৩ টি ফায়ার ইউনিট উত্তর দিয়েছে যে করোনা সংক্রমণের জন্য সন্দেহ থাকায় তাদের হাসপাতাল থেকে সরিয়েছে নিয়েছে।

অন্যদিকে ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট জানিয়েছে যে, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে হাসপাতালে পর্যাপ্ত শয্যা পাওয়া যায়নি বলে তাদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।
আরো নয়টি ইউনিট বলেছে, হাসপাতালে একাধিক চিকিৎসা সুবিধাসহ জরুরি রোগীদের গ্রহণ করা বন্ধ করে দেওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

২৪ টি ইউনিট জানিয়েছে, উদ্ধারকর্মীদের ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার হাত থেকে বাঁচাতে সুরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করার পদক্ষেপ হিসেবে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তথ্যসূত্র: জাপান টুডে

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ৩:১৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ০৪ মে ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত