ঘোষণা

সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বে ৬৬ তম অবস্থানে জাপান

| বৃহস্পতিবার, ০৭ মে ২০২০ | পড়া হয়েছে 100 বার

সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বে ৬৬ তম অবস্থানে জাপান

ওমর শাহ : সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে বিশ্বের ৬৬ তম স্থানে রয়েছে জাপান। গত বছরের তুলনায় এক ধাপ উপরে ওঠেছে বিশ্বের অন্যতম ধনী এ দেশটি। তালিকায় প্যারিস ভিত্তিক ওই গ্রুপটির ২০২০ সালের ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্সের শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে নরওয়ে। প্যারিস ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ) জানিয়েছে।

আরএসএফের সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা বরাত দিয়ে জাপানের ইংরেজি সংবাদ মাধ্যম দ্য মাইনিচি নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আরএসএফ এর তালিকার সবচেয়ে নিচে ১৮০ তম স্থানে রয়েছে পূর্ব এশিয়ার পারমাণবিক শক্তিধর দেশ উত্তর কোরিয়া। গত চার বছর ধরে নরওয়ে তালিকার শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছে। এছাড়া ফিনল্যান্ড, ডেনমার্ক, সুইডেন ও নেদারল্যান্ডস শীর্ষ পাঁচে রয়েছে বলে জানায় আরএসএফ।

আরএসএফ জানায়, র্যাঙ্কিংয়ের বৃদ্ধির পরেও জাপানি মিডিয়াগুলোর নিউজ রুমে পত্রিকার মালিকদের ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। মিডিয়ার মালিকরা ব্যবসায়িক স্বার্থকে প্রথম স্থান দেয় বলে জাপানের সংবাদ মাধ্যমে স্বাধীনতায় মালিক পক্ষের ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হচ্ছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তিন ধাপ ওপরে গিয়ে ৪৫ তম স্থানে অবস্থান করছে। তবে দেশটির সংবাদ মাধ্যমগুলো প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ” বিদ্বেষের” শিকার হচ্ছেন। ২০২০ সালে করোনা ভাইরাস মহামারীর মধ্যে আমেরিকায় এ পরিস্থিতি আরও নাজুক বলে জানানো হয়।

আমেরিকার এমন চিত্রের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে করোনার এই সঙ্কটের বিষয়ে হোয়াইট হাউজে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রেস ব্রিফিংয়ের কাভারের সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের রোষানলের শিকার হন বলে জানায় আরএসএফ।

করোনা ভাইরাস মহামারীও দুইটি দেশের র্যাঙ্কিং নিচে নেমেছে। তালিকায় নিচে নামার জন্য গণমাধ্যমের স্বাধীনতা দমন করার সাথে সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেছে আরএসএফ। গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে চীন ও ইরান তিন ধাপ নিচে নেমেছে। দেশ দুটির তালিকার অবণতির জন্য করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাব ব্যাপকভাবে কাজ করেছে বলে জানায় আরএসএফ। তালিকায় ইরানের অবস্থান ১৭৩ তম আর চীনের অবস্থান ১৭৭ তম। চীনের ভিন্ন মতাবলন্বী সাংবাদিক, ব্লগার ও অবাদ তথ্য প্রচারের নিয়ন্ত্রণ থামেনি বরং বেড়েছে।

আরএসএফ এর সূচক অনুসারে, কম্বোডিয়া এক ধাপ নিচে নেমে ১৪৪ তম স্থানে রয়েছে। চার ধাপ অধনমিত হয়ে থাইল্যান্ড রয়েছে সূচকের ১৪০ তম স্থানে। ভিন্নমত পোষণের কারণে থাইল্যান্ডের সরকার তাদেরকে গ্রেফতার অব্যাহত রেখেছে।

তবে সূচকে বিপরীত চিত্র দেখা যায় ইন্দোনেশিয়ায় ক্ষেত্রে। দেশটির সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা দেওয়ায় ক্ষেত্রে বিশ্বের ১১৯ তম স্থানে অবস্থান করছে ইন্দোনেশিয়া। দেশটির প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোডোর তার দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেস স্বাধীনতার নীতিমালা প্রণয়ন করার ফলস্বরূপ ইন্দোনেশিয়ার গণমাধ্যমের সূচক পাঁচ ধাপ বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা গত বছরের তুলনায় এক ধাপ নিচে নেমে ৪২ তম স্থানে এসেছে। উত্তর কোরিয়া সম্পর্কে দক্ষিণ কোরিয়ার সাংবাদিকরা সংবেদনশীল তথ্য প্রচারে নিয়ন্ত্রণ করে রাখে। জাতীয় সুরক্ষার অংশ হিসেবে সরকার জাতীয়তাবাদী সাংবাদিকদের স্বাধীনতা রোধ করছে বলে জানায় আরএসএফ।

সূত্র: দ্য মাইনিচি

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ৫:১৩ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৭ মে ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত