ঘোষণা

স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে জমি বেঁচে হাতি কিনলেন কৃষক

রাহিমা জাহান নিশি | বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 189 বার

স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে জমি বেঁচে হাতি কিনলেন কৃষক

স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে নিজের তিন বিঘা আবাদি জমি বিক্রি করে ১৬ লাখ ৫০ হাজার টাকায় একটি হাতি কিনেছেন এক স্বামী।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের নিভৃত পল্লী রতিধর দেউতি গ্রামে এমন ঘটনাটি ঘটেছে।

শুধু হাতি নয়, স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে তাকে কিনতে হয়েছে ঘোড়া, রাজহাঁস, রাম ছাগলসহ বিভিন্ন প্রাণী।

হাতি কেনার পর এই কৃষকের বাড়িতে বাড়ছে উৎসুক জনতার ভিড়।

জানা যায়, কৃষক দুলাল চার বিঘা জমিতে ফসল আবাদ করে সংসার চালাতেন। সংসারে স্ত্রী তুলসী রানী ও দুই সন্তান। ২০ বছর আগে কৃষক দুলালের সঙ্গে বিয়ে হয় তুলসীর।

স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা থেকেই তার স্বপ্ন পূরণে আবাদি জমি বিক্রির হাতি কিনেছেন তিনি। হাতিটি পরিচালনার জন্য মাসিক বেতনে একজন মাহুতকেও রাখতে হয়েছে।

গ্রামের লোকেরা আগে জমিদারদের হাতিতে চড়তে দেখলেও জীবনের প্রথম কোনো কৃষকের বাড়িতে হাতি দেখে অবাক তারা।

হাতির খবর শুনে দেখতে আসছেন দূরদূরান্ত থেকে। কৃষকের বাড়িতে হাতি বাঁধা, এটা সত্যিই বিরল দৃশ্য।

স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে কৃষক দুলাল কতদিন হাতি পুষতে পারবেন এই নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। তবে স্ত্রীর প্রতি তার যে ভালোবাসা, সেটা বর্তমান যুগের দৃষ্টান্ত বলে মনে করেন স্থানীয়রা।

কৃষক দুলালের স্ত্রী তুলসী রানী গত কয়েকবছর ধরে দৈবিক স্বপ্ন পেয়ে নিজ বাড়িতে পূজারী হয়ে উঠে। বাড়িতেই স্থাপন করা হয়েছে কয়েকটি মন্দির।

স্ত্রীর দৈবিক স্বপ্ন পূরণে চেষ্টা করছেন স্বামী দুলাল। এখন হাতির খাবার আর মাহুতের বেতন যোগান দিতে তাকে বিপাকে পড়তে হচ্ছে। তবুও স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা থেকে তিনি প্রাণপণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

হাতির মাহুত শরিফুল ইসলামকে ১৫ হাজার টাকা মাসিক বেতনে আনা হয়েছে। থাকা ও খাওয়া মালিকপক্ষের দায়িত্ব।

গ্রামের দুই যুবককে হাতি পরিচালনায় প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া শেষ হলেই তিনি চলে যাবেন।

জানা যায়, তুলসী রানীর ওপর পরমেশ্বর ভর করলে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। পরমেশ্বর ভর করে নানান দাবি করে।

প্রথমে দাবি করে রাজহাসঁ জবাই করলে তুলসীকে ছেড়ে যাবে সেই পরমেশ্বর (ভূত)। হাঁস জবাই করেও যায় না ভূত।

পরবর্তীতে একটি ঘোড়া দাবি করে। দরিদ্র দিনমজুর দুলাল তার স্ত্রীকে রক্ষায় ৪ বিঘা জমির মধ্যে ১ বিঘা জমি বিক্রি করে একটি ঘোড়া কিনে আনেন।

তবে তাতেও ভূত স্ত্রীকে ছেড়ে না গিয়ে উল্টো দাবি করে হাতি কিনতে হবে। অবশেষে দুলাল তার স্ত্রীকে রক্ষায় বাড়ির বাকি তিন বিঘা আবাদী জমি বিক্রি ও বসতবাড়ী বন্ধক, ধার-দেনা করে সিলেট থেকে হাতি কিনে আনেন।

১৮ সেপ্টেম্বর( শুক্রবার) গরিবের বাড়িতে হাতির পা দেখে হাজারো দর্শক ভিড় করে।

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ১০:৪৫ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত