ঘোষণা

জাপানের সংস্কৃতির সাথে আমাদের সংস্কৃতির কিছু মিল অমিল

মোহাম্মদ রুবেল । | শুক্রবার, ২১ আগস্ট ২০২০ | পড়া হয়েছে 202 বার

জাপানের সংস্কৃতির সাথে আমাদের সংস্কৃতির কিছু মিল অমিল

সাংস্কৃতিকএপাশ ওপাশ, আমাদের দেশে যেমন প্রচলিত কিছু সংস্কৃতি অন্ধবিশ্বাস গুজব কাল্পনিক ধ্যান ধারনা প্রবাহমান। তেমনি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রচলিত তেমন কিছু অন্ধবিশ্বাস কাল্পনিক দেন ধারনা প্রচলিত ও বহমান। সেই ক্ষেত্রে দেশ যত উন্নতই হোক না কেন! যেমন জাপানের মত প্রযুক্তির শীর্ষে থাকা দেশেও ওইসব সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত। নিম্নে সংক্ষিপ্তভাবে কিছু তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। যেমন, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে চাদের বুড়ির গল্প। ছোট বেলা থেকে আমরা শুনে এসছি এক বৃদ্ধ বুড়ি চাঁদে সুতো বুনেন চরকায়! শাড়ী বানানোর জন্য। ঠিক তেমনি চাঁদ ও খরগোশ এর গল্প। চাঁদে দুটি খরগোশ ঢেকিতে ধান বাঁধে। ঠিক আমাদের দেশে চাঁদের বুড়ি গল্পের মত ঠিক ওই খরগোশ এর মতই।

প্রতিবছর জাপানে (সেৎচুভুন) খারাপ ভূত বা অপশক্তি যেন ঘরে না আসতে পারে। সেজন্য প্রতিবছর ফ্রেব্রুয়ারী মাসের দুই তারিখে জাপানিরা বাদাম (মামে) গরম করে ঘরের বাহিরে চারদিকে ছুড়ে মারে। এতে অশুভ শক্তি বা ভূত পলায়ন করে! ভূতের নাম (অণি) বর্তমানেও জাপানিরা এটি যথাযথ ভাবে পালন করে। যেমনটি আমাদের দেশে কোন ঘরবাড়ি বা কোন স্থান অশুভ বা খারাপ জিনিস তাড়ানোর জন্য সাদা সরিয়া দানা ছিটানো হয়।

পূর্ণিমা রাতকে জাপানি ভাষায় বলা হয় (অচুকিমা) বা (মাংগেতচু)। জাপানে গ্রীষ্মকালে যখন কাশফুল ফুটে ওই সময় যে পূর্ণিমা হয়। কাশফুল চাঁদের মত সাদা তাই ওরা ওই রাতে চাঁদের পরিপূর্ণতার জন্য চাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে। তাই ওরা ওই রাতে পনেরটি (ধাংগ) বানায়। চাঁদের পনের দিন গণনা অনুযায়ী ওই (ধাংগ) গুলো সাদা চাঁদের মত দেখতে ওরা কাশ ফুলের উপরে চাঁদকে খুব উপভোগ করে। যেখানটি আমাদের বাংলাদেশেও আছে। বাশ বাগানের মাথার উপর চাঁদ উঠেছে ঐ। ঠিক তেমনি ভাবে জাপানেও চাঁদও কাশফুল নিয়ে অনেক গল্প ও কবিতা প্রচলিত।

আমাদের সংস্কৃতি জাপানের প্রাইমারি স্কুলে প্রথম বছরের পাঠ্যবইতে পড়ানো হয়। পূর্বের কিছু কাল্পনিক প্রথা ও গল্প ছোট বেলায় যখন আমাদের দাঁত পড়তো দাদা দাদীরা ইঁদুরের গর্তে রাখার কথা বলতো। এটা ছিল তখন আমাদের গ্রাম বাংলার সংস্কৃতি।বাংলাদেশে বাচ্চাদের দাঁত ইঁদুরের গর্তে রাখতো ভালো দাঁত পাওয়ার জন্য। ইঁদুরের ভালো পাওয়ার আশায় বাচ্চা তাই ইঁদুরের গর্তে রাখতো। নিম্নে জাপানি পাঠ্যবইয়ের কিছু অংশ তুলে ধরলাম।

বাংলাদেশে গাছে সুতো বেধেঁ মানত প্রথা কথিত আছে। কাংখিত চাওয়া পাওয়া আশায় নিজ বাসনা লিখে গাছে ঝুলিয়ে দেয়ার প্রবাদও আছে। তেমনি ভাবে জাপানিরাও কিছু পাওয়ার আশায় গাছে সুতো বা কাপড় ঝুলানোর প্রথা এখনো চালু আছে। জাপানি ভাষায় এটাকে (তানাবাতা) বলে।

——–
লেখক – মোহাম্মদ রুবেল,
জাপান প্রবাসী।

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ২১ আগস্ট ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত