ঘোষণা

প্রথম সপ্তাহেই জাপানের করোনা অ্যাপ ৪ মিলিয়ন ডাউনলোড

| রবিবার, ২৮ জুন ২০২০ | পড়া হয়েছে 33 বার

প্রথম সপ্তাহেই জাপানের করোনা অ্যাপ ৪ মিলিয়ন ডাউনলোড

ওমর শাহ : করোনা সনাক্ত করতে প্রযুক্তির দিকে ঝুঁকছে বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ জাপান। তারই অংশ হিসেবে রেস্টুরেন্টে চালু করা হয়েছে রোবটের ব্যবহার।

এবার করোনা সনাক্তের অ্যাপ তৈরি করেছে জাপান।জাপানের করোনা ট্রেসিং অ্যাপটি প্রথম সপ্তাহেই ৪ মিলিয়নেরও বেশি ডাউনলোড হয়েছে।

জাপানে অর্থনীতি চাঙা করতে দেশটির সরকার এখন ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ পুনরায় খুলে দিয়েছে বিনোদন পার্কও। দ্বিতীয় দফায় করোনার সংক্রমণ বন্ধ করার চেষ্টার অংশ হিসেবে করোনা ট্রেসিং অ্যাপটি তৈরি করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

অ্যাপ সম্পর্কে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ইয়াসুইয়োকি সাহারা বলেন, অ্যাপটি বেশি মানুষের ব্যবহারের জন্য তৈরি করা হয়েছে। তবে মিলিয়ন মিলিয়ন ডাউনলোড হবে এমন টার্গেট সংখ্যা ছিল না।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, যদি দেশের ৬০ শতাংশ মানুষও এই অ্যাপটি ব্যবহার করে তাহলে মহামারী থামানো সম্ভব হবে।

জাপানের কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ইউকি ফিউরাস বলেন, অ্যাপটির কাযকারিতা নিয়ে নানান ধরনের বিতর্ক ছিল তবে ধারণার চেয়ে বেশি মানুষ অ্যাপটি ব্যবহার করছে। করোনা মহামারীর প্রাদুর্ভাবের মধ্যে মানুষের ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে।

অ্যাপটির নাম দেওয়া হয়েছে কোকোয়া। যা বুঝায় Contact-Confirming Application- COCOA। মাইক্রোসফট করপোরেশন অ্যাপটির ডিজাইন করেছে। আর অ্যাপটি পাওয়া যাচ্ছে অ্যাপল ইনকরপোরেশনের আইফোনসহ গুগল অ্যান্ডুয়েড সফটওয়ারেও।

এটি ব্লুটুথ সিগনালের মাধ্যমে ব্যবহার করা যায়। যদি কারো করোনা পজিটিভ হয় তাহলে অ্যাপটি নোটিফিকেশন দেবে। ব্যবহার সহজ বিধায় প্রথম সপ্তাহেই ৪ মিলিয়ন( ৪০ লাখ) ডাউনলোড হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, ব্রিটেন, ভারত, জার্মানি ও ইতালিসহ বিশ্বের বহু দেশই করোনা সনাক্তের অ্যাপ চালু করেছে। তবে বিশ্বে সবার আগে করোনা সনাক্তের অ্যাপ তৈরি করেছে সিঙ্গাপুর। তবে সিঙ্গাপুরের অ্যাপটি ওয়ারেবল ডিভাইস হওয়ায় প্রাইভেসি নিয়ে উদ্বেগ তৈরি হওয়ায় ততটা জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারেনি।

গত মে মাসের শেষের দিকে জাপানের সরকার দেশজুড়ে যে জরুরী অবস্থা জারি করেছিল তা প্রত্যাহার করেছে। অনেক উন্নত দেশের তুলনায় জাপানের করোনার অবস্থা ভালো। দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ১৮ হাজার মানুষ আর মৃত্যুবরণ করেছে ৯৬৯ জন মানুষ।

রয়টার্সের এক সমীক্ষায় বলা হয়েছে, নতুন করোনাভাইরাস ২০১৯ সালের শেষদিকে চীনে প্রথম সনাক্ত করা হয়। বিশ্বজুড়ে ৯.৬২ মিলিয়নেরও বেশি লোককে সংক্রামিত করেছে এবং ৪ লাখ ৮৮ হাজার ৪৬৭ মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে।

তথ্যসূত্র: রয়টার্স ও জাপান টাইমস

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ৯:১৪ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ২৮ জুন ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত