ঘোষণা

করোনায় মানসিক চাপ কতটুকু ছিল জানতে জাপানে জরিপ

ওমর শাহ | বুধবার, ২৯ জুলাই ২০২০ | পড়া হয়েছে 96 বার

করোনায় মানসিক চাপ কতটুকু ছিল জানতে জাপানে জরিপ

করোনা ভাইরাস মহামারী কীভাবে মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলেছে তা খতিয়ে দেখতে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আগামী মাসে দেশব্যাপী প্রথমবারের মতো জরিপ পরিচালনা করবে।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সরকারের অন্যান্য সূত্রের বরাত দিয়ে ২৮ জুলাই এই তথ্য জানিয়েছে দেশটির সংবাদ মাধ্যম জাপান টাইমস।

অপ্রয়োজনে বাসার বাইরে থাকা ও সরকার দেশব্যাপি জরুরী অবস্থা ঘোষণা করায় ব্যবসায়ীয়ক ক্রিয়াকলাপ বন্ধ থাকায় হতাশা ও অন্যান্য মানসিক চাপের কারণগুলিতে বৃদ্ধি পেয়েছিল কিনা তা এ বিষয়ে জপিরে জানা যাবে।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে ভবিষ্যত মানসিক অসুস্থতার ক্ষেত্রে সাড়া জাগাতে স্থানীয় মানসিক স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কেন্দ্রগুলো জরিপের ফলাফল ব্যবহার করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে মহামারী করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। একই সাথে বিশ্বজুড়ে মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের উপর দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলে।

গত মে মাসে জাতিসংঘ জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫ শতাংশ মানুষ চাপ অনুভব করেছে। মহামারী ও এর পরে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও বেশি কিছু করার তাগিদ দিয়েছে আন্তর্জাতিক এ সংস্থাটি।

জাপানের স্বাস্থ্য, শ্রম ও জনকল্যাণ মন্ত্রণালয় করোনার তীব্রতা চলাকালে গত এপ্রিল ও মে মাসে যে কোনও ধরনের চাপ তারা কীভাবে মোকাবেলা করেছে, তাদের অন্যান্য মানসিক অবস্থা কেমন ছিল এবং তারা কীভাবে সে পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছে সে বিষয়ে জানবে।

এছাড়াও সরকার দেশব্যাপি যে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেছিল তা দেশবাসীর মনে কেমন প্রভাব ফেলেছিল অন্যান্য প্রশ্নগুলোর মধ্যে এ বিষয়ে জানা হবে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, করোনা শুরুর দুই মাসের মধ্যে স্থানীয় সরকার কর্তৃক পরিচালিত মানসিক স্বাস্থ্য ও কল্যাণ কেন্দ্রগুলো করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত মানসিক স্বাস্থ্য পরামর্শের ক্ষেত্রে বিশেষত চল্লিশ ও পঞ্চাশ বছর বয়সীদের মধ্যে যারা মানসিক স্বাস্থ্য পরামর্শ নিয়েছিল তাদের সাথেও কথা বলেছে।

কেউ কেউ বলছিলেন যে, তারা ভাল ঘুমাতে পারছেন না, কেউ কেউ এমন অনুভবও করেছেন তারা উদ্বেগের কারণে পাগল হয়ে গেছেন বা বাইরে যাওয়ার থেকে বিরত থাকায় তারা অনেক চাপ অনুভব করছেন।

করোনা ভাইরাসের কারণে অনেকে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করছেন বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি ট্র্যাকিং গ্রুপ খবর পেয়েছে।

টোহোকু বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ও সাইকিয়াট্রিস্ট ইয়াসুটো কুনি বলেন, করোনা ভাইরাস মহামারী মানসিকভাবে অসুস্থ রোগীদের অবস্থাকে আরও বাড়িয়ে তোলেছে। যারা চিকিৎসকের পরামর্শ নেননি তাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে।

জুনে জাপানের সাইকিয়াট্রি অ্যান্ড নিউরোলজিসহ আরো চারটি সংস্থা করোনা মহামারীর কারণে যে মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা তৈরি হয়েছে তাকে একটি “বিপর্যয়” হিসাবে বর্ণনা করেছে। একই সাথে তারা করোনা ভাইরাস রোগী, চিকিৎসা কর্মী, প্রবীণ ও শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যায় সমাধানে জোড়ালো সমর্থন দেওয়ার কথা জানান।

আত্মহত্যা প্রতিরোধে দক্ষ ইউনিভার্সিটি অফ সুকুবা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হিরোকাজু তাছিকাওয়া সরকারি এ সিদ্ধানের সমালোচনা করে বলেন, মনোরোগের ক্ষেত্রে জাপান বড় আকারের জরিপ পরিচালনায় অন্যান্য দেশ থেকে পিছিয়ে রয়েছে।

তিনি বলেন, আমি আশা করি (সরকার) জরিপে কেবল মানসিক সমস্যা রয়েছে তাদের শতাংশের তুলনায় না দেখিয়ে দেশবাসীকে এমন প্রশ্ন করবে যাতে মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখার সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া যায়।

তথ্যসূত্র: দ্য জাপান টুডে

সম্পাদনায় : পি. আর. প্ল্যাসিড

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ১০:২৯ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২৯ জুলাই ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত