ঘোষণা

আজব সব কান্ড কারখানা যেন ঘটছে এখন আমাদের দেশে

| শনিবার, ০৯ মে ২০২০ | পড়া হয়েছে 31 বার

আজব সব কান্ড কারখানা যেন ঘটছে এখন আমাদের দেশে

দিদার কচি,

গার্ডিয়ান পত্রিকায় সাংবাদিক কাজল কে নিয়ে বিশাল একটি রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে। যাতে যেন দেশের পুরো চিত্র ফুটে উঠেছে। রিপোর্টিট পড়ার পর নিজের কাছে একটু প্রশ্ন জাগল, এই নাটকের শেষ কোথায়?

করোনা ভাইরাসের এই সংকটকালে কেন হঠাৎ করে সরকার এই পথে হাঁটতে শুরু করেছে তার কিছুই বুঝলাম না । কোথায় সবাই মিলে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হবার বিষয় মোকাবেলা করে তা ফোকাস করবে তা না করে একের পর এক সাংবাদিক ,লেখক ,সোশ্যাল এক্টিভিস্ট প্রেফতার শুরু করলো। প্রেফতারের পর তাও দেয়া হচ্চে তাদরের বিরুদ্ধে যাচ্ছে তাই মামলা।

একটা মামলার এজহার আপনাদের সুবিধার জন্য এখানে উল্লেখ করলাম।
মামলার এজাহারে লেখা আছে ‘মোস্তাক আহম্মেদ এর দেহ তল্লাশি করিয়া একটি Xiaomi মোবাইল ফোন, যার মডেল নাম্বার Redmi 5 উদ্ধার করা হয়েছে।’‍

এপর্যন্ত জেনে আসছি আসামীদের দেহ তল্লাশি করে বন্দুক, ছুরি পাওয়া যেতো, কলিকালে পাওয়া যায় মোবাইল ফোন। ভয়ানক অস্ত্র যেন এটি। আমি নিশ্চিত যে, চিত্র শিল্পী কিশোর বাইরে থাকলে এটা নিয়ে একটা কার্টুন অবশ্যই আঁকতেন!!

আজব সব কান্ড কারখানা যেন ঘটছে এখন আমাদের দেশে। যেখানে দাগী আসামিদের করোনাকালে মুক্তি দিয়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন দেশে সেখানে সামান্য সামান্য মৌখিক বিরোধিতার জন্য জেল-জুলুম খুবই অন্যায়। কিশোরর কি এমন অপরাধ ছিল ?? তার আঁকা ছবি কি দেখেছেন? করোনা সংকটে তার অনেকগুলো ছবি ছিল নানা অব্যাবস্থাপনা নিয়ে ।

গ্রেফতার হওয়ার আগে কিশোরের শেষ স্ট্যাটাস ছিল এমন, ‘কাজল ভাইকে হাতমোড়া করে বাধার সময়ও তাকে একটা মাস্ক দিতে পারলো না! “আফসোস আর আফসোস”। এই আফসোস আমাদের হওয়া উচিৎ সকলের !!

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ১২:২১ অপরাহ্ণ | শনিবার, ০৯ মে ২০২০

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত