ঘোষণা

সত্য ও মিথ্যার দীর্ঘস্থায়ী যুদ্ধে প্রথমে মিথ্যা জয়ী হয়, কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয়ী হয় সত্য

আনিসুল হক | শনিবার, ২২ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 109 বার

সহকর্মী রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানায় আনা হয়েছে শুনে ১৭ মে ২০২১ সোমবার রাতে ওই থানায় দ্রুত চলে গেলাম। বাইরে সাংবাদিকেরা তাঁর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছিলেন। রোজিনার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করলাম। পারলাম না। তবে তাঁর জরুরি ওষুধ এবং কাপড়চোপড় সেই রুদ্ধ দরজা খুলে ভেতরে দেওয়া হলো অনেকক্ষণ ধরনার পর। পরের দিন, ১৮ মে মঙ্গলবার বেশ সকাল সকাল তাঁকে নেওয়া হলো সিএমএম আদালতে। প্রথমে রাখা হলো গারদে। তারপর তাঁকে শত শত ...বিস্তারিত

সহকর্মী রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানায় আনা হয়েছে শুনে ১৭ মে ২০২১ সোমবার রাতে ওই থানায় দ্রুত চলে গেলাম। বাইরে সাংবাদিকেরা তাঁর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করছিলেন। রোজিনার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করলাম। পারলাম না। তবে তাঁর জরুরি ওষুধ এবং কাপড়চোপড় সেই রুদ্ধ দরজা খুলে ভেতরে দেওয়া হলো অনেকক্ষণ ধরনার পর। পরের ...বিস্তারিত

সহকর্মী রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানায় আনা হয়েছে শুনে ১৭ মে ২০২১ সোমবার রাতে ওই থানায় দ্রুত চলে গেলাম। বাইরে সাংবাদিকেরা ...বিস্তারিত

ধর্ম নিয়ে রুচিহীন প্রশ্ন ও বিব্রতকর আলোচনা বন্ধ হোক

প্রভাষ আমিন | বুধবার, ১৯ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 137 বার

কয়েকদিন আগে ভারতের পাঁচ রাজ্যে নির্বাচন হয়েছে। এই রাজ্যগুলোর মধ্যে ছিল পশ্চিমবঙ্গও। বাংলাদেশের গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিক্রিয়া দেখে মনে হয়েছে, ভারতের কেন্দ্রীয় নির্বাচনের চেয়ে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন নিয়েই বুঝি বাংলাদেশের মানুষের আগ্রহ বেশি। আগ্রহটা অবশ্য অমূলক নয়। পশ্চিমবঙ্গের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কটা নাড়ীর। একসময়কার অভিন্ন বঙ্গ পরে ভাগ হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ পড়েছে ভারতে, পূর্ববঙ্গ পড়ে পাকিস্তানে, নাম হয় পুর্ব পাকিস্তান। একাত্তর সালে রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা অর্জন করে বাংলাদেশ। তবে ...বিস্তারিত

কয়েকদিন আগে ভারতের পাঁচ রাজ্যে নির্বাচন হয়েছে। এই রাজ্যগুলোর মধ্যে ছিল পশ্চিমবঙ্গও। বাংলাদেশের গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিক্রিয়া দেখে মনে হয়েছে, ভারতের কেন্দ্রীয় নির্বাচনের চেয়ে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন নিয়েই বুঝি বাংলাদেশের মানুষের আগ্রহ বেশি। আগ্রহটা অবশ্য অমূলক নয়। পশ্চিমবঙ্গের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কটা নাড়ীর। একসময়কার অভিন্ন বঙ্গ পরে ভাগ হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গ ...বিস্তারিত

কয়েকদিন আগে ভারতের পাঁচ রাজ্যে নির্বাচন হয়েছে। এই রাজ্যগুলোর মধ্যে ছিল পশ্চিমবঙ্গও। বাংলাদেশের গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিক্রিয়া দেখে ...বিস্তারিত

জয় হবে রোজিনার, পরাজিত হবে যারা তাকে আঘাত করলো তাদের

জিল্লুর রহমান | বুধবার, ১৯ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 89 বার

রোজিনা কি সন্ত্রাসী? হ্যা, আমি সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম -এর কথাই বলছি। ছবিটি কিন্তু ভিন্ন কথা বলছে! মনে হচ্ছে রোজিনা পালিয়ে যাবে অথবা তাঁকে কেউ ছিনতাই করে নিয়ে যাবে। ছবিতে যাদের দেখা যাচ্ছে এদের কি কোনো কাজ নেই? অথচ এদের বেতন হয় জনগণের টাকায়। আমরা রোজিনার নিঃশর্ত মুক্তি চাই। রোজিনা কেবল একজন সুপ্রতিষ্ঠিত সাংবাদিকই নন, তিনি এদেশের একজন নাগরিকও। অতএব রোজিনার পাশে আমাদের সবার দাঁড়ানো উচিত। এই ...বিস্তারিত

রোজিনা কি সন্ত্রাসী? হ্যা, আমি সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম -এর কথাই বলছি। ছবিটি কিন্তু ভিন্ন কথা বলছে! মনে হচ্ছে রোজিনা পালিয়ে যাবে অথবা তাঁকে কেউ ছিনতাই করে নিয়ে যাবে। ছবিতে যাদের দেখা যাচ্ছে এদের কি কোনো কাজ নেই? অথচ এদের বেতন হয় জনগণের টাকায়। আমরা রোজিনার নিঃশর্ত ...বিস্তারিত

রোজিনা কি সন্ত্রাসী? হ্যা, আমি সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম -এর কথাই বলছি। ছবিটি কিন্তু ভিন্ন কথা বলছে! মনে হচ্ছে ...বিস্তারিত

প্রতিবাদের এক নাম আয়েশা সিদ্দিকা: ছাগু যা এবার কাঁঠালপাতা খা

সুবীর পাল, এডিটর, দ্য অফনিউজ: | মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 239 বার

আমি রূপসী বাংলার সাংবাদিক হয়ে কুর্ণিশ জানাই সোনার বাংলার এক প্রতিবাদী চরিত্রকে। যিনি প্রকৃতই প্রতিবাদের এক অনন্য নাম "আয়েশা সিদ্দিকা"। আসলে একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে আজ বাংলাদেশ রীতিমতো ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষায় প্রতিবাদে সোচ্চার। হোক প্রতিবাদ দিকে দিকে এই মন্ত্রে প্রকৃতই মুখর উদারচেতা বাংলাদেশীরা। তারা যে অনেকটা সুসংবদ্ধ। এবং এককাট্টাও। তাই হয়তো এই ইস্যুতে খানিকটা ব্যাকফুটে স্থানীয় মৌলবাদী জেহাদিরা। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের গতিশীলতার পক্ষে এই মাইলফলক অবশ্যই এক শুভ সূচক। আলোচনার গোড়ায় ...বিস্তারিত

আমি রূপসী বাংলার সাংবাদিক হয়ে কুর্ণিশ জানাই সোনার বাংলার এক প্রতিবাদী চরিত্রকে। যিনি প্রকৃতই প্রতিবাদের এক অনন্য নাম "আয়েশা সিদ্দিকা"। আসলে একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে আজ বাংলাদেশ রীতিমতো ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষায় প্রতিবাদে সোচ্চার। হোক প্রতিবাদ দিকে দিকে এই মন্ত্রে প্রকৃতই মুখর উদারচেতা বাংলাদেশীরা। তারা যে অনেকটা সুসংবদ্ধ। এবং এককাট্টাও। তাই ...বিস্তারিত

আমি রূপসী বাংলার সাংবাদিক হয়ে কুর্ণিশ জানাই সোনার বাংলার এক প্রতিবাদী চরিত্রকে। যিনি প্রকৃতই প্রতিবাদের এক অনন্য নাম "আয়েশা সিদ্দিকা"। আসলে ...বিস্তারিত

মায়ের ভাষার জন্য বাবার অবদানের স্বীকৃতি

আসাদুজ্জামান জুয়েল | মঙ্গলবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | পড়া হয়েছে 1513 বার

কবি রামনিধি গুপ্ত লিখেছিলেন ‘নানান দেশের নানা ভাষা, বিনে স্বদেশী ভাষা, পুরে কি আশা?’ আর স্বদেশী ভাষা মানেই মায়ের ভাষা, যে ভাষায় আমরা প্রথম কথা বলা শিখি। তাই যত ভাষাই শিখিনা কেন, যত ভাষায়ই কথা বলিনা কেন মায়ের ভাষায়, স্বদেশী ভাষায় কথা বলতে না পারলে যেন বুক ফেটে যায়। বিদেশ বিভূইয়ে ভোজনে যে তৃপ্তি পায় মানুষ তার চেয়েও অধিক তৃপ্তি পায় স্বদেশী কাউকে পেলে, তার সাথে একটু মায়ের ভাষায় কথা ...বিস্তারিত

কবি রামনিধি গুপ্ত লিখেছিলেন ‘নানান দেশের নানা ভাষা, বিনে স্বদেশী ভাষা, পুরে কি আশা?’ আর স্বদেশী ভাষা মানেই মায়ের ভাষা, যে ভাষায় আমরা প্রথম কথা বলা শিখি। তাই যত ভাষাই শিখিনা কেন, যত ভাষায়ই কথা বলিনা কেন মায়ের ভাষায়, স্বদেশী ভাষায় কথা বলতে না পারলে যেন বুক ফেটে যায়। বিদেশ ...বিস্তারিত

কবি রামনিধি গুপ্ত লিখেছিলেন ‘নানান দেশের নানা ভাষা, বিনে স্বদেশী ভাষা, পুরে কি আশা?’ আর স্বদেশী ভাষা মানেই মায়ের ভাষা, ...বিস্তারিত

গণতন্ত্রই সংশোধন করল গণতন্ত্রের ভুল

মাহফুজ আনাম | শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২১ | পড়া হয়েছে 321 বার

আমেরিকানরা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করে ২০১৬ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করে। চার বছর পর তারা আবার গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেই ট্রাম্পকে পরাজিত করে তাদের সেই বিপর্যয়কর ভুল সংশোধন করে। মাঝের সময়টাতে ভুলের জন্য তাদের ভুগতে হয়েছে। তবে তারা গণতান্ত্রিক পদ্ধতির প্রতি আস্থা হারায়নি, নিয়ম ভাঙেনি। চার বছর অপেক্ষা করে গণতন্ত্রের মাধ্যমেই ভুলকে ‘ঠিক’ করেছে। এখানে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় শেখার আছে। প্রথমত, আমেরিকার জনগণ গণতন্ত্র ও নির্বাচন ব্যবস্থার ওপর থেকে আস্থা ...বিস্তারিত

আমেরিকানরা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করে ২০১৬ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করে। চার বছর পর তারা আবার গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করেই ট্রাম্পকে পরাজিত করে তাদের সেই বিপর্যয়কর ভুল সংশোধন করে। মাঝের সময়টাতে ভুলের জন্য তাদের ভুগতে হয়েছে। তবে তারা গণতান্ত্রিক পদ্ধতির প্রতি আস্থা হারায়নি, নিয়ম ভাঙেনি। চার বছর অপেক্ষা ...বিস্তারিত

আমেরিকানরা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করে ২০১৬ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করে। চার বছর পর তারা আবার গণতান্ত্রিক অধিকার ...বিস্তারিত

শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার প্রবণতা কেন

আনোয়ার হোসেন হৃদয়  | সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১ | পড়া হয়েছে 260 বার

কথায় আছে, মানুষ নাকি বাঁচার জন্য ভাসমান খড়কুটোও আঁকড়ে ধরে। তাহলে কেন আত্মহত্যার মতো একটি কাণ্ড অবলীলায় ঘটিয়ে ফেলে সেই মানুষ? মানুষ কেন আত্মহত্যা করে, এর কোনো সুনির্দিষ্ট উত্তর নেই। জীবন শেষ করে দেওয়াকে অনেকে সাহসী, আবার অনেকে কাপুরুষোচিত কাজ বলে আখ্যা দেন। তবে নিরপেক্ষ স্থান থেকে ভেবে দেখার সময় এসেছে-কেন ঘটছে আত্মহত্যা। মোটা দাগে একে সামাজিক অবক্ষয় বলে চালিয়ে দেওয়া হলেও এই একটিই কি আত্মহত্যার কারণ? সাম্প্রতিক সময়ে অল্পদিনের ব্যবধানে ...বিস্তারিত

কথায় আছে, মানুষ নাকি বাঁচার জন্য ভাসমান খড়কুটোও আঁকড়ে ধরে। তাহলে কেন আত্মহত্যার মতো একটি কাণ্ড অবলীলায় ঘটিয়ে ফেলে সেই মানুষ? মানুষ কেন আত্মহত্যা করে, এর কোনো সুনির্দিষ্ট উত্তর নেই। জীবন শেষ করে দেওয়াকে অনেকে সাহসী, আবার অনেকে কাপুরুষোচিত কাজ বলে আখ্যা দেন। তবে নিরপেক্ষ স্থান থেকে ভেবে দেখার সময় এসেছে-কেন ...বিস্তারিত

কথায় আছে, মানুষ নাকি বাঁচার জন্য ভাসমান খড়কুটোও আঁকড়ে ধরে। তাহলে কেন আত্মহত্যার মতো একটি কাণ্ড অবলীলায় ঘটিয়ে ফেলে সেই ...বিস্তারিত

অ্যা বিগ অ্যাকাডেমিক লস

আমীন আল রশীদ | রবিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১ | পড়া হয়েছে 288 বার

বিখ্যাত বা বিশিষ্ট কারো মৃত্যু হলে আমরা সব সময়ই বলি, ‘এটি অপূরণীয় ক্ষতি এবং এই শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়।’ অধিকাংশ সময়ই এই কথাটি নিরর্থক ও অন্তঃসারশূন্য। কারণ, অধিকাংশ মানুষের মৃত্যুই অপূরণীয় ক্ষতি নয়। এবার আমরা এমন একজন মানুষকে হারালাম, যার মৃত্যু আসলেই অপূরণীয় ক্ষতি। এই শূন্যতা ঠিক কবে পূরণ হবে— তা আমরা জানি না। মাত্র ৫৩ বছর বয়সে বিদায় নিয়েছেন সাংবাদিক মিজানুর রহমান খান। সবশেষ প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব ...বিস্তারিত

বিখ্যাত বা বিশিষ্ট কারো মৃত্যু হলে আমরা সব সময়ই বলি, ‘এটি অপূরণীয় ক্ষতি এবং এই শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়।’ অধিকাংশ সময়ই এই কথাটি নিরর্থক ও অন্তঃসারশূন্য। কারণ, অধিকাংশ মানুষের মৃত্যুই অপূরণীয় ক্ষতি নয়। এবার আমরা এমন একজন মানুষকে হারালাম, যার মৃত্যু আসলেই অপূরণীয় ক্ষতি। এই শূন্যতা ঠিক কবে পূরণ হবে— ...বিস্তারিত

বিখ্যাত বা বিশিষ্ট কারো মৃত্যু হলে আমরা সব সময়ই বলি, ‘এটি অপূরণীয় ক্ষতি এবং এই শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়।’ অধিকাংশ ...বিস্তারিত

নাগরিকের আবেদন, রাজনীতির প্রতিক্রিয়া

গোলাম মোর্তোজা | সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 360 বার

এমন অভিযোগ ৫০ বছরের বাংলাদেশে আগে কখনো উঠেনি। অভিযোগ আর্থিক অনিয়ম বা অসততার। বলছি নির্বাচন কমিশনের কথা। বাংলাদেশে এ যাবৎকালে যতগুলো নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছে, দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া কমবেশি অভিযোগ আছে সবগুলো নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে। সেই অভিযোগ সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন না করার ও সরকারের প্রতি আজ্ঞাবহতার। সেসব অভিযোগেও বর্তমান নির্বাচন কমিশন আরও বড়ভাবে অভিযুক্ত। কিন্তু, অতীতের কোনো সময়ের নির্বাচন কমিশনারদের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়ম বা অসততার অভিযোগ উঠেছে বলে জানা যায় না। ...বিস্তারিত

এমন অভিযোগ ৫০ বছরের বাংলাদেশে আগে কখনো উঠেনি। অভিযোগ আর্থিক অনিয়ম বা অসততার। বলছি নির্বাচন কমিশনের কথা। বাংলাদেশে এ যাবৎকালে যতগুলো নির্বাচন কমিশন গঠিত হয়েছে, দু’একটি ব্যতিক্রম ছাড়া কমবেশি অভিযোগ আছে সবগুলো নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে। সেই অভিযোগ সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনী দায়িত্ব পালন না করার ও সরকারের প্রতি আজ্ঞাবহতার। সেসব অভিযোগেও বর্তমান নির্বাচন ...বিস্তারিত

এমন অভিযোগ ৫০ বছরের বাংলাদেশে আগে কখনো উঠেনি। অভিযোগ আর্থিক অনিয়ম বা অসততার। বলছি নির্বাচন কমিশনের কথা। বাংলাদেশে এ যাবৎকালে যতগুলো ...বিস্তারিত

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের লড়াই

আলমগীর শাহরিয়ার | মঙ্গলবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২০ | পড়া হয়েছে 365 বার

পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল ধর্মের জিগির তুলে। সে রাষ্ট্র কাঠামোর অভ্যন্তরে একটি দল ১৯৫৫ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত তাদের কাউন্সিলে দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দ প্রত্যাহার করে নিয়ে সবাইকে চমকে দেয়। কার্যত ধর্মপরিচয়ে বিভক্ত উপমহাদেশে নতুন ধারার রাজনীতির বার্তা দেয়। এমন সাহসী সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়েই মূলত আওয়ামী লীগ সর্বজনীন অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক একটি দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। মওলানা ভাসানী, শামসুল হক, মাওলানা আবদুর রহমান তর্কবাগীশের মতো উদার নেতৃত্বের পথ ধরে ভাষাভিত্তিক জাতীয়তায় উদ্বুদ্ধ ...বিস্তারিত

পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল ধর্মের জিগির তুলে। সে রাষ্ট্র কাঠামোর অভ্যন্তরে একটি দল ১৯৫৫ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত তাদের কাউন্সিলে দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দ প্রত্যাহার করে নিয়ে সবাইকে চমকে দেয়। কার্যত ধর্মপরিচয়ে বিভক্ত উপমহাদেশে নতুন ধারার রাজনীতির বার্তা দেয়। এমন সাহসী সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়েই মূলত আওয়ামী লীগ সর্বজনীন অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক ...বিস্তারিত

পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম হয়েছিল ধর্মের জিগির তুলে। সে রাষ্ট্র কাঠামোর অভ্যন্তরে একটি দল ১৯৫৫ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত তাদের কাউন্সিলে দলের ...বিস্তারিত

ad