ঘোষণা

সমুদ্র ও পাহাড়ে প্রকৃতির নৈসর্গিক হাতছানি

আলম শামস | রবিবার, ০৩ অক্টোবর ২০২১ | পড়া হয়েছে 90 বার

সমুদ্র ও পাহাড়কে ভালোবাসেন না এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। প্রকৃতির নৈসর্গিক রূপে গড়া পাহাড় কিংবা সাগরপাড় ভ্রমনে যে কেউ বিমোহিত হবে। সমুদ্রের সুরেলা ভাষা,রূপবৈচিত্র্য দেখে মুগ্ধ হয় পর্যটক। সাগরের উত্তাল ঢেউ ভিজিয়ে দেবে শরীর ও মন, দিনের শেষে সূর্যের অস্তমিত দৃশ্য মোহিত করবে ভ্রমন বিলাসীর হৃদয়। আবির রাঙা আলো আর মুক্ত বাতাসে বুক ভরে নিঃশ্বাস নিতে কার না ভাল লাগে! সাগরের উতলা হাওয়া বুকের ভেতর জমে থাকা দীর্ঘশ্বাসের কষ্ট ...বিস্তারিত

সমুদ্র ও পাহাড়কে ভালোবাসেন না এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। প্রকৃতির নৈসর্গিক রূপে গড়া পাহাড় কিংবা সাগরপাড় ভ্রমনে যে কেউ বিমোহিত হবে। সমুদ্রের সুরেলা ভাষা,রূপবৈচিত্র্য দেখে মুগ্ধ হয় পর্যটক। সাগরের উত্তাল ঢেউ ভিজিয়ে দেবে শরীর ও মন, দিনের শেষে সূর্যের অস্তমিত দৃশ্য মোহিত করবে ভ্রমন বিলাসীর হৃদয়। আবির রাঙা আলো ...বিস্তারিত

সমুদ্র ও পাহাড়কে ভালোবাসেন না এমন লোক খুঁজে পাওয়া মুশকিল। প্রকৃতির নৈসর্গিক রূপে গড়া পাহাড় কিংবা সাগরপাড় ভ্রমনে যে কেউ ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে পর্ব-১১ গানের পাখি কালাভিঙ্কা দেবতা

সাইম রানা | শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১ | পড়া হয়েছে 127 বার

  ১৪ জুন ২০০৫, মঙ্গলবার। আজ আমার প্রথম নিজ চেষ্টায় আই- ও-ইন টেম্পলে অর্থাৎ ক্যারিওবিঙ্গা বুদ্ধিস্ট রিসার্চ ইন্সিটিউট-এ ক্লাস। সেতাগায়া থেকে প্রথমে ইকেবুকুরো স্টেশনে গেলাম, সেখান থেকে কামি ইতাবাসি স্টেশন । প্রথম দিন অর্থাৎ ১১ তারিখে প্রফেসরের সাথে প্রাইভেট কারে এসেছিলাম এখানে । ফলে শহরের অলিগলি কিছুই বুঝে উঠতে পারিনি । আজ স্বাধীনভাবে চলছি, শহরের ঘরবাড়ি, পুরোনো দালান, মহল্লা, সিনেমা হল, ট্রাফিকজ্যাম, মার্কেট, ভিক্ষুক, ছোট ছোট নদী ঝর্ণা কোনকিছুই দৃষ্টি এড়িয়ে ...বিস্তারিত

  ১৪ জুন ২০০৫, মঙ্গলবার। আজ আমার প্রথম নিজ চেষ্টায় আই- ও-ইন টেম্পলে অর্থাৎ ক্যারিওবিঙ্গা বুদ্ধিস্ট রিসার্চ ইন্সিটিউট-এ ক্লাস। সেতাগায়া থেকে প্রথমে ইকেবুকুরো স্টেশনে গেলাম, সেখান থেকে কামি ইতাবাসি স্টেশন । প্রথম দিন অর্থাৎ ১১ তারিখে প্রফেসরের সাথে প্রাইভেট কারে এসেছিলাম এখানে । ফলে শহরের অলিগলি কিছুই বুঝে উঠতে পারিনি । ...বিস্তারিত

  ১৪ জুন ২০০৫, মঙ্গলবার। আজ আমার প্রথম নিজ চেষ্টায় আই- ও-ইন টেম্পলে অর্থাৎ ক্যারিওবিঙ্গা বুদ্ধিস্ট রিসার্চ ইন্সিটিউট-এ ক্লাস। সেতাগায়া থেকে ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে ( পর্ব – ১০) আই- আই গাছা বা ভালোবাসার ছাতা

সাইম রানা | রবিবার, ০৬ জুন ২০২১ | পড়া হয়েছে 177 বার

 আই-আই গাছা বা এক ছাতায় দুই মাথা সাইম রানা আজ ১৩ জুন ২০০৫, বাসায় একা। সকাল থেকে ঘরের ভিতরে জাপানিজ ভাষা শিখতে শিখতে ক্লান্ত লাগছে। ছোটবেলা বইতে পড়েছিলাম ...বিস্তারিত

 আই-আই গাছা বা এক ছাতায় দুই মাথা সাইম ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে (পর্ব-৯) বীণাবাদিনী মাতোবা ইউকো

সাইম রানা | শনিবার, ২৯ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 181 বার

শিবুয়া থেকে একা একা সেতাগায়া কু-এর বাসায় ফিরেছি। ঘণ্টাখানেক পর সেনসেইও সঙ্গে একজন অতিথি নিয়ে বাসায় ফিরলেন। পঞ্চাশোর্ধ হবেন। দরজা খুলতেই আমাকে 'কননিচি ওয়া’ সম্বোধন করলেন। অতিথি নিজেই হাত বাড়িয়ে দিয়ে হিন্দিতে পরিচয় দিলেন যে তিনি মাতোবা ইউকো। আমি বললাম, ‘খুবই দুঃখিত যে আমি হিন্দি ভালো বুঝি না, তুমি বাংলা জানো কি না?’ এবার ইংরেজিতে উত্তর এলো, ‘তোমার হিন্দি জানার মতোই।’ মাতোবা ইউকো জাপানের একজন প্রসিদ্ধ বীণাবাদিকা। পড়ালেখা করেছেন টোকিও সংগীত ...বিস্তারিত

শিবুয়া থেকে একা একা সেতাগায়া কু-এর বাসায় ফিরেছি। ঘণ্টাখানেক পর সেনসেইও সঙ্গে একজন অতিথি নিয়ে বাসায় ফিরলেন। পঞ্চাশোর্ধ হবেন। দরজা খুলতেই আমাকে 'কননিচি ওয়া’ সম্বোধন করলেন। অতিথি নিজেই হাত বাড়িয়ে দিয়ে হিন্দিতে পরিচয় দিলেন যে তিনি মাতোবা ইউকো। আমি বললাম, ‘খুবই দুঃখিত যে আমি হিন্দি ভালো বুঝি না, তুমি বাংলা ...বিস্তারিত

শিবুয়া থেকে একা একা সেতাগায়া কু-এর বাসায় ফিরেছি। ঘণ্টাখানেক পর সেনসেইও সঙ্গে একজন অতিথি নিয়ে বাসায় ফিরলেন। পঞ্চাশোর্ধ হবেন। দরজা ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে (পর্ব ৮) বাঁশিবাদিনী কামিলা ও অদ্ভুত মধ্যাহ্নভোজন

সাইম রানা | সোমবার, ২৪ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 214 বার

মধ্যাহ্নভোজনের জন্য আমরা শিবুয়া স্টেশনের নিকটবর্তী একটি রেস্টুরেন্টে গিয়ে বসলাম। হোটেলে ঢুকতেই কেমন যেন এক প্রকার কাঠের গন্ধ ভেসে এলো, অপরিচিত, তবে স্নিগ্ধতা আছে। এটি হয়তো কোন খাবার মশলারই গন্ধ হবে, যা বাঙালি হোটেলে কখনোই পাইনি। পরবর্তীতে আমি জাপানের যে প্রান্তেই গিয়েছি, সেখানে এই গন্ধ টের পেয়েছি। এই গন্ধ মেপল কিংবা পাইন কাঠের কি না তা আজও জানা হয়নি । যাইহোক, রেস্টুরেন্টটি ট্র্যাডিশনাল হলেও আধুনিকতার সাথে ইন্টেরিয়রে সমন্বয় ...বিস্তারিত

মধ্যাহ্নভোজনের জন্য আমরা শিবুয়া স্টেশনের নিকটবর্তী একটি রেস্টুরেন্টে গিয়ে বসলাম। হোটেলে ঢুকতেই কেমন যেন এক প্রকার কাঠের গন্ধ ভেসে এলো, অপরিচিত, তবে স্নিগ্ধতা আছে। এটি হয়তো কোন খাবার মশলারই গন্ধ হবে, যা বাঙালি হোটেলে কখনোই পাইনি। পরবর্তীতে আমি জাপানের যে প্রান্তেই গিয়েছি, সেখানে এই গন্ধ টের পেয়েছি। এই গন্ধ ...বিস্তারিত

মধ্যাহ্নভোজনের জন্য আমরা শিবুয়া স্টেশনের নিকটবর্তী একটি রেস্টুরেন্টে গিয়ে বসলাম। হোটেলে ঢুকতেই কেমন যেন এক প্রকার কাঠের গন্ধ ভেসে এলো, ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে (পর্ব-৭) মেট্রোজীবন ও চিত্রশালা

সাইম রানা | মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 206 বার

১২ ই জুন ২০০৫ । সকালে সেনসেই আর গাড়ি বের করলেন না। শুরু হল ট্রেন ভ্রমণ। বাসা থেকে ৫/৭ মিনিটের পথ হেঁটে কামিমাছি স্টেশনে পৌঁছুলাম। সেখান থেকে শিবুয়া স্টেশন পর্যন্ত যেতে হবে সেতাগায়া লাইনে উঠে । স্টেশন থেকে তিনি আমার জন্য একটি জেআর (জাপান রেলওয়ে) লাইনের জন্য সুইকা ও অন্যান্য লাইনের জন্য প্রিপেইড কার্ড সংগ্রহ করলেন। এছাড়া কীভাবে ...বিস্তারিত

১২ ই জুন ২০০৫ । সকালে সেনসেই আর গাড়ি বের করলেন না। শুরু হল ট্রেন ভ্রমণ। বাসা থেকে ৫/৭ মিনিটের পথ হেঁটে কামিমাছি স্টেশনে পৌঁছুলাম। সেখান থেকে শিবুয়া স্টেশন পর্যন্ত যেতে হবে সেতাগায়া লাইনে উঠে । স্টেশন থেকে ...বিস্তারিত

১২ ই জুন ২০০৫ । সকালে সেনসেই আর গাড়ি বের ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে (পর্ব-৬) শিক্ষানীতি ও বাদ্য নির্বাচন

সাইম রানা | শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 185 বার

জাপানিজ ভাষায় শিক্ষককে সেনসেই বলে, আর শিক্ষার্থীকে বলে গাকুসেই। (যদিও গাকুসেই বলতে শিক্ষা সংক্রান্ত অধ্যাদেশকেও বোঝানো হয়) তবে ছাত্ররা শিক্ষককে সেনসেই বলে সম্বোধন করলেও শিক্ষকরা গাকুসেই বলে সম্বোধন না করে নামের সাথে ‘সান’ যুক্ত করে নেয় । যেমন আমি কিয়োকোকে সেনসেই বলা শুরু করলাম আগের দিন আইওইন টেম্পল থেকে ফেরার সময় থেকে, আর তিনি আমাকে ডাকলেন রানা সান, যদিও ‘র’ ধ্বনিটি অনেকটা ‘ল’ এর মতো হয়ে যায়, আবার ‘ল’ ও ...বিস্তারিত

জাপানিজ ভাষায় শিক্ষককে সেনসেই বলে, আর শিক্ষার্থীকে বলে গাকুসেই। (যদিও গাকুসেই বলতে শিক্ষা সংক্রান্ত অধ্যাদেশকেও বোঝানো হয়) তবে ছাত্ররা শিক্ষককে সেনসেই বলে সম্বোধন করলেও শিক্ষকরা গাকুসেই বলে সম্বোধন না করে নামের সাথে ‘সান’ যুক্ত করে নেয় । যেমন আমি কিয়োকোকে সেনসেই বলা শুরু করলাম আগের দিন আইওইন টেম্পল থেকে ফেরার ...বিস্তারিত

জাপানিজ ভাষায় শিক্ষককে সেনসেই বলে, আর শিক্ষার্থীকে বলে গাকুসেই। (যদিও গাকুসেই বলতে শিক্ষা সংক্রান্ত অধ্যাদেশকেও বোঝানো হয়) তবে ছাত্ররা শিক্ষককে ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে (পর্ব-৫) বৃত্তির বিড়ম্বনা ও মিউজিক স্কুল

সাইম রানা | রবিবার, ০২ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 263 বার

এখানে কেন ভর্তি হলাম? অনেকের কাছে এমন প্রশ্ন জাগতে পারে। ব্যাপারটা খোলাসা করা দরকার। আইওইন একটি বৌদ্ধমন্দির হলেও এখানে একটি গবেষণা ইন্সটিটিউট রয়েছে যার নাম ক্যারিওবিঙ্গা বুদ্ধিস্ট কেনকিউকাই। ক্যারিওবিঙ্গা অর্থ হল চীন দেশের এক প্রকার সুরেলা গানের পাখি আর কেনকিউকাই মানে গবেষণাগার। এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি মূলত সিঙ্গন ধারার সংগীত ও দর্শন চর্চা করা থাকে। জাপানের বুদ্ধিজম আরও কিছু ধারা বা সেক্টর রয়েছে, তন্মধ্যে তেনদাই ও জেন অন্যতম। এ নিয়ে পরে ...বিস্তারিত

এখানে কেন ভর্তি হলাম? অনেকের কাছে এমন প্রশ্ন জাগতে পারে। ব্যাপারটা খোলাসা করা দরকার। আইওইন একটি বৌদ্ধমন্দির হলেও এখানে একটি গবেষণা ইন্সটিটিউট রয়েছে যার নাম ক্যারিওবিঙ্গা বুদ্ধিস্ট কেনকিউকাই। ক্যারিওবিঙ্গা অর্থ হল চীন দেশের এক প্রকার সুরেলা গানের পাখি আর কেনকিউকাই মানে গবেষণাগার। এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানটি মূলত সিঙ্গন ধারার সংগীত ও ...বিস্তারিত

এখানে কেন ভর্তি হলাম? অনেকের কাছে এমন প্রশ্ন জাগতে পারে। ব্যাপারটা খোলাসা করা দরকার। আইওইন একটি বৌদ্ধমন্দির হলেও এখানে একটি ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে – (পর্ব-৪) আইওইন মন্দিরে সৌম্য সংগীত

সাইম রানা | বৃহস্পতিবার, ২৯ এপ্রিল ২০২১ | পড়া হয়েছে 216 বার

২০০৫ সালের ১১ই জুন । টোকিও শহরের প্রথম দিনের সকাল। প্রফেসর কিয়োকোর সেতাগায়া কু-এর বাসায় দক্ষিণের জানালা দিয়ে তীর্যক আলো ঘরে ঢুকছে। জানলার পাশেই কাঠের একটি গোল ডাইনিং টেবিল। খুবই সাধারণ ডিজাইন, কিন্তু অভিজাত। প্রফেসর কিয়োকো বাইরে থেকে নাস্তা নিয়ে এলেন। তিনি নিজে থেকেই ধরে নিয়েছেন আমি যেহেতু মুসলমান, ফলে পোর্গ বা শুকরের মাংশ গ্রহণ করি না। কিন্তু যে ব্রেডটি নিয়ে এলেন, তা কাটতে গিয়ে বেরিয়ে এলো ঠিক মাঝ বরাবর ...বিস্তারিত

২০০৫ সালের ১১ই জুন । টোকিও শহরের প্রথম দিনের সকাল। প্রফেসর কিয়োকোর সেতাগায়া কু-এর বাসায় দক্ষিণের জানালা দিয়ে তীর্যক আলো ঘরে ঢুকছে। জানলার পাশেই কাঠের একটি গোল ডাইনিং টেবিল। খুবই সাধারণ ডিজাইন, কিন্তু অভিজাত। প্রফেসর কিয়োকো বাইরে থেকে নাস্তা নিয়ে এলেন। তিনি নিজে থেকেই ধরে নিয়েছেন আমি যেহেতু মুসলমান, ফলে ...বিস্তারিত

২০০৫ সালের ১১ই জুন । টোকিও শহরের প্রথম দিনের সকাল। প্রফেসর কিয়োকোর সেতাগায়া কু-এর বাসায় দক্ষিণের জানালা দিয়ে তীর্যক আলো ...বিস্তারিত

জাপানের পথে পথে – (পর্ব-৩) কিয়োকোর সাকুরা হাউস

সাইম রানা | সোমবার, ২৬ এপ্রিল ২০২১ | পড়া হয়েছে 209 বার

সেতাগায়া কু-এর বাড়িটি কিয়োকোর নিজের। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া দোতলা বাড়ির উপর তলায় থাকেন। একা। নীচতলায় তাঁর ছোট বোনের সংসার। প্রফেসরের কোনো পরিবার নেই। এ প্রসঙ্গে কখনো জানতেও চাইনি কারণ তাঁর বদান্যতার ভিতরে এক ধরনের আবরণশীলতা লক্ষ্য করেছি, আবার ভয়ও পেতাম। তিনি এই স্কলারশিপের পেছনে কী যে শ্রম দিয়েছেন তা বর্ণনা করা কঠিন, ফলে আমার নিকট শিক্ষা বিষয়ে এতটাই প্রত্যাশা করতেন যে তার জোগান দিতে দিতেই ত্রাহী ত্রাহী অবস্থা। ফলে স্বল্পসময়ের ...বিস্তারিত

সেতাগায়া কু-এর বাড়িটি কিয়োকোর নিজের। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া দোতলা বাড়ির উপর তলায় থাকেন। একা। নীচতলায় তাঁর ছোট বোনের সংসার। প্রফেসরের কোনো পরিবার নেই। এ প্রসঙ্গে কখনো জানতেও চাইনি কারণ তাঁর বদান্যতার ভিতরে এক ধরনের আবরণশীলতা লক্ষ্য করেছি, আবার ভয়ও পেতাম। তিনি এই স্কলারশিপের পেছনে কী যে শ্রম দিয়েছেন তা বর্ণনা ...বিস্তারিত

সেতাগায়া কু-এর বাড়িটি কিয়োকোর নিজের। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া দোতলা বাড়ির উপর তলায় থাকেন। একা। নীচতলায় তাঁর ছোট বোনের সংসার। প্রফেসরের ...বিস্তারিত

ad