ঘোষণা

সেই সে ছেলেটা

অঞ্জলি দে নন্দী | বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১ | পড়া হয়েছে 78 বার

সেই সে ছেলেটা

রগ চটা সেই সে ছেলেটা।
এলেবেলে কথাবার্তা তার।
সবাই ভেংচি কেটে বলত,
এই ছেলেটা ভেল ভেলেটা!

এতো খেতো এতো খেতো এতো খেতো,
তা দেখে সবাই বলত,
হাগুড়ে কোথাকার!
রূপেও এক্কেবারে হত কুৎসিত সে তো।

তাই নিজেই নিজে লজ্জা পেতো।
তবে যৌবন বয়সে দিক পরিবর্তন হল তার,
আপন ভ্যাগের চাকার।

খুব কঠোর পরিশ্রম করতে হলেও,
চাকরিটা ছিল সরকারী তার।
মাইনেটাও কমই ছিল।
তবুও তা নিয়েই ও খুশি ছিল।

বাড়ি ছেড়ে বহু দূরে গেল চলে ও।
এরপর সে নিজেকে বদলে নিল।
মাঝপথে থামিয়ে লেখাপড়া
ও চাকরী করছিল।
এবার ও মন দিল
ও করল, চাকরীর সাথে লেখাপড়া।

একের পর এক ডিগ্রী করছিল।
অবশেষে উচ্চ শিক্ষিত হল সে।
তারপর বিয়ে করে হল সে পতি।
বৌটি তার খুব গুণী হল।
পতিকে বানালো গরীব থেকে কোটিপতি।

উচ্চ পদে কর্মরতও হল সে।
হঠাৎ একদিন বৌটি ক্যান্সারে ম’ল।
একাকী স্বামী বড় করে তার একমাত্র ছেলেকে।
বিশ্ব বিখ্যাত বানালো ও ছেলেকে।
ও অনেক ইনকাম করে।
বিদেশে বাস করে।

ওর বিয়ে দিল, পুত্রবধূ আনলো।
এরপর সে সন্ন্যাসী হয়ে হিমালয় চলে গেল।
ছেলে ও বধূর মানা না মানলো।
নাতী হলে তাকে যেন জানানো হয়,
তাকে যেন নাতীর মুখ দেখতে আনানো হয়!
এ কথা সে ছেলে ও বধূকে বলে গেল।

Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ৯:৪২ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৪ জুলাই ২০২১

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

অশ্রু

১৩ জুলাই ২০২০

শিখে গেছি

২৫ জুলাই ২০২০

পাখির ভাষা

১৪ নভেম্বর ২০২০

এগারো নং বাড়ির গেট

২৬ এপ্রিল ২০২১

বিষাক্ত গাছ

১৮ ডিসেম্বর ২০২০

তোমার  ব্যস্ততা

০৭ এপ্রিল ২০২১

রজনীগন্ধা

০২ ডিসেম্বর ২০২০

মনের কোঠরে

২০ নভেম্বর ২০২০

 হিংসুটে

১৩ জুলাই ২০২০

অর্ধ গোলাপ

১৭ আগস্ট ২০২০

ঝিরিঝিরি পাতার গাছটি

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

অন্য কৃষ্ণকলি

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১