ঘোষণা

মা চলে গেছে না ফেরার দেশে,রয়ে গেছে স্মৃতিপটে

 জিনাত নাজিয়া  | রবিবার, ১৬ মে ২০২১ | পড়া হয়েছে 96 বার

মা চলে গেছে না ফেরার দেশে,রয়ে গেছে স্মৃতিপটে
অফিসিয়াল এক ঝামেলায় আমাকে এক বছরের জন্য দেশের বাড়িতে চলে যেতে হবে।ঢাকায় বড় হওয়া আমার সন্তানদের মফস্বলের স্কুলে ভর্তি করতে হবে ভেবে আমার মন খুবই খারাপ হয়ে আছে।কিন্তু আমার স্নেহময়ী মাকে দেখলাম দারুণ উৎফুল্ল, কারণ বিয়ের পর এই প্রথম আমি এত দীর্ঘ সময় মায়ের কাছাকাছি থাকব। কোথায় আমার  বিছানা হবে,কোথায় বাচ্চাদের পড়ার টেবিল বসবে এই নিয়ে তার ব্যস্ততার শেষ নেই। কোথা দিয় কেটে গেলো পাঁচ মাস।পরে বুঝতে পেরেছি আমাকে নিয়ে ভাবির সাথে মায়ের কথা কাটাকাটি হত।আরও কিছু দিন পর সেটা চরম আকার ধারণ করলো।এক পর্যায়ে ভাবি মেয়েকে  বাপের বাড়ি চলে গেলো।নিজেকে অপরাধী ভাবলেও কিছুই করার ছিলো না।ভেঙে খানখান হয়ে গেলো আমার উচ্ছ্বল মায়ের মন,  যে মনে গুমরে গুমরে কেঁদে উঠত করুন বাশীর সুর।নিদারুণ কষ্টে তাঁর কেটেছে সেই  দিনগুলো। সেই কষ্ট কোন মতে কাটিয়ে উঠতেই আমার আসার সময় হলো। আরও একবার মুষড়ে পড়লেন মা। হাজারো কষ্টে যে আমায় তাঁর স্নেহের পরশে ঢেকে রেখেছেন আজ তার ও পরিসমাপ্তি হলো। আসার সময় সালাম করতেই মা আমায় জড়িয়ে ধরে হু হু করে কেঁদে উঠলেন। খুব কাছ থেকে আমি মায়ের বুকের রক্তক্ষরণ টের পেলাম।ফিসফিস করে বললেন, ” আবার এসে যদি আমায় দেখতে না পাস।” বুকের ভিতর মোচড় দিয়ে উঠলো আমার।সত্যি আর ফিরে পাইনি আমার লক্ষি মায়ের স্নেহের পরশ। ঠিক আমি চলে আসার দু’ মাসের মাথায় মা আমায় ছেড়ে  চলে গেলেন না ফেরার দেশে। মাকে ছাড়া কেমন করে সময় কাটাচ্ছি জানিনা। সেই ছোঁয়া  সেই মায়াময় চোখের স্নেহময় ভালোবাসা এখনো স্পষ্ট হয়ে আছে আমার বিষন্ন স্মৃতি মাঝে। যেখানেই থাক খুব ভালো থেক মা,খুব ভালো।
Facebook Comments

বাংলাদেশ সময়: ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ১৬ মে ২০২১

জাপানের প্রথম অনলাইন বাংলা পত্রিকা |